1. admin@dailyamarnews24.com : admin :
শনিবার, ২১ মে ২০২২, ০৫:৪০ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
নাটোর পাড় আটঘরিয়ায় বৈদ্যুতিক শক থেকে লাগা অগ্নিকাণ্ডে মোকসেদ মন্ডল এর বাড়ি পুড়ে ছাই নিয়োগ বাণিজ্য ও বহিরাগতদের নিয়ে ম্যননেজিং কমিটি এবং মাদ্রাসার প্রিন্সিপাল এর অপসারণ দাবিতে মানববন্ধন নাটোরে গাঁজা সহ একজন কে আটক করেছে র‌্যাব-৫ । কোভিড-১৯-এর আরও নতুন স্ট্রেনের আবির্ভাব ঘটতে চলেছে,যা সম্ভবত আরও বেশি প্রাণঘাতীও হবে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (WHO) শিশু কন্যাকে ধর্ষণের অভিযোগে বাবাকে আটক করেছে পুলিশ সাবেক নির্বাচন কমিশনার ব্রিগেডিয়ার জেনারেল (অব.) এম সাখাওয়াত হোসেন কে প্রধান নির্বাচন কমিশনার করার প্রস্তাব করেছেন গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা ও ট্রাস্টি ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী ক্ষুদ্রঋণ সংস্থা শক্তি ফাউন্ডেশন ফর ডিসএ্যাডভান্টেজড উইমেন ৪টি বিভাগে ১৩ ধরনের পদে মোট ৮৩৮টি শক্তি ফাউন্ডেশনের নতুন শাখায় প্রথম ঋণ বিতরণ ও শাখা উদ্বোধন করেন ক্রেডিট প্রোগ্রামের প্রধান মোঃ এমদাদুল হক ৩ টি ক্যাটাগরিতে মোট ৫ জনকে নিয়োগ দেবে নাটোর জেলা পরিষদ কার্যালয় প্রধানমন্ত্রীর উপদেশ আমার জন্য শিরোধার্য, আমি জনগণের জন্য জনকল্যাণে কাজ করি, মাননীয় প্রধানমন্ত্রীও জনকল্যাণে কাজ করেন :: ড: সেলিনা হায়াত আইভী

নাটোরে দশম শ্রেণীর শিক্ষার্থীর বিয়ে বন্ধ করলেন ইউএনও মোঃ তমাল হোসেন

  • আপডেট সময় : সোমবার, ১৭ জানুয়ারি, ২০২২
  • ৮৪ বার পঠিত

 

ডেস্ক রিপোর্ট::

নাটোরে দশম শ্রেণীর শিক্ষার্থীর বিয়ে বন্ধ করলেন ইউএনও মোঃ তমাল হোসেন

বর আসার আগেই কনের বাড়ি হাজির ইউএনও,বন্ধ হলো বাল্যবিয়ে।

চলছিল বাল্যবিয়ের আয়োজন। বড় বড় ডেকচিতে চলছিলো বরযাত্রী ও আগত অতিথিদের জন্য রান্নাবান্না। সবাই বরযাত্রী আসার অপেক্ষায় ছিলেন। কিন্তু বর আসার আগেই বিয়ে বাড়িতে হঠাৎ উপস্থিত হন নাটোরের গুরুদাসপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. তমাল হোসেন। ঘটনাস্থলে পৌঁছে বাল্যবিয়ের সকল আয়োজন বন্ধ করেন তিনি। এ সময় কনের বাবার কাছ থেকে মুচলেকা নেওয়া হয়।

শুক্রবার (১৪ জানুয়ারি) দুপুরে গুরুদাসপুর উপজেলার খুবজীপুর ইউনিয়নের বিলশা গ্রামে এই ঘটনা ঘটে।

স্থানীয়রা জানান, বিলশা গ্রামের দশম শ্রেণীতে পড়ুয়া স্কুলছাত্রীর বাল্যবিয়ের আয়োজন চলছিল। বর পার্শ্ববর্তী এলাকার বাসিন্দা। দুপুরের দিকে বর এবং বরযাত্রীর আসার জন্য অপেক্ষা করছিলেন মেয়ের বাড়ির লোকজন। ঠিক এমন অবস্থায় পুলিশকে সাথে নিয়ে বিয়ে বাড়িতে উপস্থিত হন গুরুদাসপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. তমাল হোসেন। এসময় মেয়েপক্ষের লোকজন ইউএনওকে নানাভাবে মিথ্যা তথ্য দিয়ে বিভ্রান্ত করার চেষ্টা করেন। তবে নানা আয়োজনের প্রস্তুতির ব্যাপারে জিজ্ঞাসাবাদ করলে মেয়ের পরিবার একপর্যায়ে স্বীকার করেন বিয়ের বিষয়টি। এরপর ইউএনও তমাল হোসেন সেই বিয়ে বন্ধ করে দেন এবং ১৮ বছরের পূর্বে বিয়ে দিবে না মর্মে মুচলেকা নেন তার পরিবারের কাছ থেকে।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা তমাল হোসেন জানান, বিলশা গ্রামে এক শিক্ষার্থীর বাল্যবিয়ের প্রস্তুতির খবর শুনে ঘটনাস্থলে গিয়ে বিয়ে বন্ধ করা হয়েছে। মেয়ের অভিভাবকদের বাল্যবিয়ের কুফল সম্পর্কে বোঝানো হয়েছে। তারাও মেয়ের বিয়ের বয়স হবার পূর্বে বিয়ে দেবে না বলে মুচলেকা দিয়েছেন। বাল্যবিয়ে বন্ধে উপজেলা প্রশাসন বদ্ধপরিকর।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ জাতীয় আরও খবর
© All rights reserved © 2021 Daily Amar News 24
Theme Customized By Theme Park BD