1. admin@dailyamarnews24.com : admin :
বুধবার, ০৫ অক্টোবর ২০২২, ১০:২২ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
নাটোর পাড় আটঘরিয়ায় বৈদ্যুতিক শক থেকে লাগা অগ্নিকাণ্ডে মোকসেদ মন্ডল এর বাড়ি পুড়ে ছাই নিয়োগ বাণিজ্য ও বহিরাগতদের নিয়ে ম্যননেজিং কমিটি এবং মাদ্রাসার প্রিন্সিপাল এর অপসারণ দাবিতে মানববন্ধন নাটোরে গাঁজা সহ একজন কে আটক করেছে র‌্যাব-৫ । কোভিড-১৯-এর আরও নতুন স্ট্রেনের আবির্ভাব ঘটতে চলেছে,যা সম্ভবত আরও বেশি প্রাণঘাতীও হবে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (WHO) শিশু কন্যাকে ধর্ষণের অভিযোগে বাবাকে আটক করেছে পুলিশ সাবেক নির্বাচন কমিশনার ব্রিগেডিয়ার জেনারেল (অব.) এম সাখাওয়াত হোসেন কে প্রধান নির্বাচন কমিশনার করার প্রস্তাব করেছেন গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা ও ট্রাস্টি ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী ক্ষুদ্রঋণ সংস্থা শক্তি ফাউন্ডেশন ফর ডিসএ্যাডভান্টেজড উইমেন ৪টি বিভাগে ১৩ ধরনের পদে মোট ৮৩৮টি শক্তি ফাউন্ডেশনের নতুন শাখায় প্রথম ঋণ বিতরণ ও শাখা উদ্বোধন করেন ক্রেডিট প্রোগ্রামের প্রধান মোঃ এমদাদুল হক ৩ টি ক্যাটাগরিতে মোট ৫ জনকে নিয়োগ দেবে নাটোর জেলা পরিষদ কার্যালয় প্রধানমন্ত্রীর উপদেশ আমার জন্য শিরোধার্য, আমি জনগণের জন্য জনকল্যাণে কাজ করি, মাননীয় প্রধানমন্ত্রীও জনকল্যাণে কাজ করেন :: ড: সেলিনা হায়াত আইভী

তওবা ও ইস্তিগফার কি,,,??? জানতে হলে পড়ুন,,,,,,

  • আপডেট সময় : সোমবার, ৭ ফেব্রুয়ারি, ২০২২
  • ১৩৭ বার পঠিত

 

রিপোর্ট, সংগৃহীত, মোঃ মকবুল হোসেন::

তওবা ও ইস্তিগফারঃ

ভূমিকা

নিজের কৃত গুনাহের উপর লজ্জিত হয়ে খোদার সামনে কান্নাকাটি ও কাকুতি-মিনতি করে ভবিষ্যতে এমন গুনাহ না করার সংকল্প করা এবং এই বলে ফরিয়াদ করা যে, হে আল্লাহ আমার গুনাহ ক্ষমা করে দাও এবং অন্তরে এ দৃঢ় অঙ্গীকার করা যে,আর কখনো গুনাহ করব না,একেই তওবা বলে।
ইস্তিগফার মানে হলো ক্ষমা প্রার্থনা করা। আল্লাহ হলেন ‘গাফির’ ক্ষমাকারী, ‘গফুর’ ক্ষমাশীল, ‘গফফার’ সর্বাধিক ক্ষমাকারী। ইস্তিগফার একটি স্বতন্ত্র ইবাদত; কোনো গুনাহ বা পাপ মাফ করার জন্য এই ইবাদত করা হয় না। যেমন: নামাজ, রোজা, হজ ইত্যাদি ইবাদত দ্বারা গুনাহ মাফ হয়; কিন্তু এসব ইবাদত করার জন্য গুনাহ করা শর্ত নয়। তওবা ও ইস্তিগফার আল্লাহ তাআলার অতি পছন্দের একটি ইবাদত। তাই প্রিয় নবী হজরত মুহাম্মদ (সা.) নিষ্পাপ হওয়া সত্ত্বেও প্রতিদিন ৭০ থেকে ১০০ বার তওবা ও ইস্তিগফার করতেন। অনুরূপ ইমানের পর নামাজ প্রধান ও সর্বশ্রেষ্ঠ ইবাদত হওয়া সত্ত্বেও এই নামাজ আদায়ের পর তিনবার ইস্তিগফার পড়া সুন্নত। অর্থাৎ ইস্তিগফার শুধু পাপের পরে নয়, ইবাদতের পরেও করা হয়। যেমন হজের পর ইস্তিগফার করা বিষয়ে কোরআনে উল্লেখ আছে, ‘(হজ শেষে) তারপর তোমরা বেরিয়ে পড়ো, যেভাবে মানুষ চলে যাচ্ছে এবং আল্লাহর কাছে ক্ষমা চাও। নিশ্চয়ই আল্লাহ তাআলা ক্ষমাশীল, পরম দয়ালু।’ (সুরা-২ বাকারা, আয়াত: ১৯৯)।
ইস্তিগফার সম্বন্ধে কোরআনে আছে, ‘তোমরা তোমাদের রবের কাছে ক্ষমা প্রার্থনা করো, নিশ্চয়ই তিনি মহাক্ষমাশীল।’ (সুরা-৭১ নূহ, আয়াত: ১০)। ‘অতঃপর তোমার রবের প্রশংসাসহ পবিত্রতা বর্ণনা করো এবং তাঁর কাছে ক্ষমা প্রার্থনা করো।’ (সুরা-১১০ নাসর, আয়াত: ৩)। ‘আর আল্লাহ তাআলা আজাব দেবেন না তাদের, আপনি তাদের মাঝে থাকা অবস্থায়; আর আল্লাহ তাদের আজাব দেবেন না, যখন তারা ইস্তিগফার করে।’ (সুরা-৮ আনফাল, আয়াত: ৩৩)। ইস্তিগফার সম্পর্কে হাদিসে আছে, রাসুলুল্লাহ (সা.) বলেন, ‘যে যত মুমিন বান্দার জন্য ইস্তিগফার করবে, সে তাদের সবার সমপরিমাণ নেকি লাভ করবে।’ (সিয়ারে কাবির, তাবরানি)।

তওবা কিঃ

তওবা অর্থ হলো ফিরে আসা। মানুষ যখন ভুল পথে যায় বা বিপথগামী হয়, তখন সেখান থেকে সঠিক পথে বা ভালো পথে ফিরে আসাকে তওবা বলা হয়। তওবার পারিভাষিক অর্থ হলো লজ্জিত হওয়া। অর্থাৎ স্বীয় কৃতকর্মে লজ্জিত হয়ে সঠিক পথে ফিরে আসা। তওবার জন্য করণীয় হলো, স্বীয় কৃতকর্মের প্রতি লজ্জিত ও অনুতপ্ত হওয়া, সেই অপরাধ আর না করার দৃঢ় প্রত্যয় ও সংকল্প গ্রহণ করা এবং নেক আমলের প্রতি বেশিমাত্রায় মনোযোগী হওয়া। তওবা সম্পর্কে কোরআনে রয়েছে, ‘হে ইমানদারেরা, তোমরা আল্লাহর কাছে খাঁটি তওবা করো, আশা করা যায় তোমাদের রব তোমাদের পাপসমূহ মোচন করবেন এবং তোমাদের এমন জান্নাতসমূহে প্রবেশ করাবেন, যার তলদেশে ঝরনাসমূহ প্রবহমান।’ (সুরা-৬৬ তাহরিম, আয়াত: ৮)। ‘নিশ্চয়ই আল্লাহ তাআলা তওবাকারীদের ও পবিত্রতা অর্জনকারীদের ভালোবাসেন।’ (সুরা-২ বাকারা, আয়াত: ২২২)। ‘(হে রাসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম) আপনি বলুন, (আল্লাহ বলেন) হে আমার বান্দারা! যারা নিজেদের সত্তার প্রতি সীমাহীন জুলুম করেছ, তোমরা আল্লাহর রহমত হতে নিরাশ হয়ো না। নিশ্চয়ই আল্লাহ তাআলা সব গুনাহ ক্ষমা করে দেবেন; নিশ্চয়ই তিনি ক্ষমাশীল, পরম দয়ালু।’ (সুরা-৩৯ জুমার, আয়াত: ৫৩)।
রাসুলুল্লাহ (সা.) বলেন, ‘হে মানব সকল! তোমরা আল্লাহর দিকে ফিরে আসো, নিশ্চয় আমি প্রতিদিন ১০০ বার তওবা করি।’ (মুসলিম)। তিনি আরও বলেন, ‘সকল আদম সন্তানই গুনাহগার, গুনাহগারদের মধ্যে শ্রেষ্ঠ হলো তওবাকারীরা। (তিরমিজি, ইবনে মাজা, দারেমি)। তওবার সুফল সম্পর্কে রাসুলুল্লাহ (সা.) বলেন, ‘গুনাহ থেকে তওবাকারী, বেগুনাহ ব্যক্তির মতো। (ইবনে মাজা, বায়হাকি)।
উল্লেখ্য, আল্লাহর হক আল্লাহ ক্ষমা করবেন; কিন্তু বান্দার হক বান্দা ক্ষমা না করলে আল্লাহ ক্ষমা করবেন না। তাই তাওবা ইস্তিগফারের সঙ্গে সঙ্গে বান্দার হক পরিশোধ করা বা ক্ষমা চেয়ে নেওয়া অবশ্যকর্তব্য।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ জাতীয় আরও খবর
© All rights reserved © 2021 Daily Amar News 24
Theme Customized By Theme Park BD